1. jasim3444@gmail.com : Coxtribune.com :
  2. jasimnahid555@gmail.com : Jasim Nahid : Jasim Nahid
  3. mdboshirulla@gmail.com : MD Boshir : MD Boshir
  4. mohammadsiddique8727@gmail.com : Md Siddique : Md Siddique
  5. tribunecox@gmail.com : Jasim Uddin : বশির উল্লাহ
কুঁড়েঘরের আর্তনাদ,রাষ্ট্র শুনে না" - Coxtribune.com
সোমবার, ১৯ এপ্রিল ২০২১, ১২:৩১ পূর্বাহ্ন

কুঁড়েঘরের আর্তনাদ,রাষ্ট্র শুনে না”

মোহাম্মদ সোহেল রানা
  • আপডেটের সময় : সোমবার, ৫ এপ্রিল, ২০২১
  • ৭১ বার ভিউ

গভীর রাতে বয়ে গেলো কালবৈশাখীর প্রচন্ড বাতাসের সাথে বৃষ্টি,মনের সুখে গভীর ঘুমে বিভোর ছিলাম আমার ছোট্ট কুঁড়েঘরে। ঘুমে বিভোর ছিলাম মসজিদের মাইকের আজানের আওয়াজে ভোরে ঘুম হতে উঠে পান্তা ভাত খেয়ে বের হতে রিজিকের সন্ধানে। আমার ছোট্ট সংসার চলে দিন মজুরে অর্থাৎ দিনে এনে দিনে খাওয়া।

আমার কুঁড়েঘর তৈরি বাশেঁর বেড়া,বাশেঁর উপরে কালো পলিথিনের ছাঁলা দিয়ে চলে খুব সুখের হাসি মুখের সংসার। যদি মন খারাপ হয় ক্ষুদার যন্ত্রনায় তখন চাদেঁর আলো বাড়িতে ডুকে তা দেখতে দেখতে রাত কেটে যেত। তারপর সকালে রিজিকের সন্ধানে বেরিয়ে পড়তাম।

আমি জানতাম কালবৈশাখী আমার অশ্রুজলে ভেজাঁবে ছাঁলা দিয়ে টপটপ বৃষ্টির ফুটা পড়তে পড়তে। ঠিক গতরাতেও পড়ছে টপটপ বৃষ্টি নষ্ট হল কুঁড়েঘরের নিচের অংশ। নিজের সুখের জন্য এক কোণায় রাত্রিযাপন করে সকালে বেরিয়ে যাবো ভাবতে ভাবতে রাস্তায় সরকারি মাইক এসে পড়ছে মহল্লায়। সর্তকতা করা হচ্ছে লকডাউন বাড়ি বের হওয়া যাবে না। খুব চিন্তায় পড়ে গেলাম কালকে আয় না করলে পরিবারের মুখে খাবার তুলে দিতে কষ্ট হবে খুব।

ভোরে ঘুম ভাঙলো,উঠলাম। ক্ষুধা মানে না কাটাঁতার, ক্ষুধা মানে না চার দেওয়াল কিংবা মানে না রাষ্ট্রের নিয়ম নীতি তখন মানচিত্র খেতে মন চাই। বিষন্ন হৃদয় নিয়ে বিষন্নতা কাঁধে নিয়ে বেরিয়ে পড়লাম রাষ্ট্রের আইন ভঙ্গন করে রিজিকের সন্ধানে। ভাবতে ভাবতে চলছি পথেপ্রান্তরে কাজের সন্ধান মিলছে না। কোথাও কাজ নেই। তারপরও দু পা চলছে অবিরত গন্তব্যহীন। ক্লান্তি শরীরে একটু বিশ্রাম নিতে বসে ছিলাম বটবৃক্ষের নিচে,তখনি পড়লাম ধরা পুলিশ বাহিনীর হাতে ধরা।

মুখে ছিল না মাস্ক, শরীর ছিল না পরিষ্কার, শরীর ছিল ঘাম যু্ক্ত (ছিল না করোনাভাইরাস প্রতিরোধের কোন কিছুই) “ক্ষুধা মানে কি করোনাভাইরাস?”। সরকারি লোকরা মুখে পড়িয়ে দিলো একটা মাস্ক,তখনি নিঃশ্বাস বন্ধ হচ্ছিল।খুব কষ্ট হচ্ছিল নিঃশ্বাস নিতে আমার পূর্বে কখনো মাস্ক পড়ার অভ্যাস ছিল না। তখনি তারা কাগজে কি যেন লিখছিল,তারপর কাগজ টা হাতে ধরিয়ে দিয়ে বলে দুইশত টাকা জরিমানা দেন। আমি খুব নরম সুরে বললাম স্যার দুশত টাকা থাকলে রাষ্ট্র আইন অমান্য করে কাজের সন্ধানে আসতাম না। কোন ভাবে মানছে না তারা দুশত টাকা দিতেই হবে দিতেই হবে।

তখন অশ্রুজলে ভাসছে নয়ন,জরিমানা দিতে না পেরে নিয়ে গেলেন থানায়। আর অপরদিকে ক্ষুধার যন্ত্রনায় মরছে আমার পরিবার,নিঃশ্বাসে অভিশাপ দিচ্ছে হয়ত আমাকে।

 

লেখকঃ

মোহাম্মদ সোহেল রানা

সদস্য 

রিপোর্টার্স ইউনিটি মহেশখালী 

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
© All rights reserved © 2020 coxtribune.com
Desing & Developed BY Serverneed.com
error: Content is protected !!